1. sopeelabd@gmail.com : bdnewsworld :
  2. Nazmul241991@gmail.com : Nazmul Hassan : Nazmul Hassan
  3. somoykaltv@gmail.com : বিডিনিউজ ওয়ার্ল্ড : বিডিনিউজ ওয়ার্ল্ড
  4. proshantoKumaDas91@gmail.com : Proshanto Kumar Das : Proshanto Kumar Das
জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের নামফলক ভাঙ্গার সাথে এমপি খোকার সম্পৃক্ততা নেই এটা পরিকল্পিত চক্রান্ত - BD News World
রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১২:৫৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
চোখ গুলো চেয়ে আছে অসহায়ত্বের দিকে ! আগামী ২৮ ডিসেম্বর বেতাগী পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের দলীয় প্রার্থীর মনোনায়ন চূড়ান্ত হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রেস ক্লাবের অভিষেক অনুষ্ঠানে সাংবাদিক লেখক কবিদের মিলন মেলায় পরিণত প্রায়ত নাসিম ওসমান এমপি’র তনয় আজমেরীর সহধর্মিনী করোনায় আক্রান্ত, সকলের দোয়া প্রার্থনা ভাল রেজাল্ট নয় আপনাদের সন্তানকে ভাল মানুষ হিসেবে গড়ে তুলুন : জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন ইসলামের বিপক্ষে অবস্থান নিলে হেফাজত কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না : মা:আব্দুল আউয়াল লাইফ সাপোর্টে পরিবরহন নেতা মোক্তার হোসেন এমপি একেএম শামীম ওসমান দোয়া চেয়েছেন নারায়ণগঞ্জ ৩ আসনে রেজাউলের ওরা ১১জন’ কিংবা কায়সারের‘সেভেন স্টার বাহিনী নেই এখন খোকার আছে আম জনতা আলেম-ওলামাদের দেশে মূর্তি সংস্কৃতি চলতে দেয়া হবে না মাদ্রাসা ছাত্রদের উপর পুলিশের হামলা ও গ্রেফতারের প্রতিবাদে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিক্ষোভ

জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের নামফলক ভাঙ্গার সাথে এমপি খোকার সম্পৃক্ততা নেই এটা পরিকল্পিত চক্রান্ত

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি
  • সংবাদটি প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৮ নভেম্বর, ২০২০
  • ১২১ বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের নামফলক ভাঙ্গার বিষয়ে ভিন্ন কারন বের হয়ে এসেছে।

স্থানীয় এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার বিরুদ্ধে ওই নামফলক ভাঙ্গার অভিযোগ তোলা হলেও এমপি খোকার অজ্ঞাতসারেই নামফলকটি ভাঙ্গা হয়েছে এবং এটাকে অনেকেই পরিকল্পিত চক্রান্ত বলে মন্তব্য করেছেন সোনারগাঁয়ের অনেকেই।

এই অপ্রিতিকর ঘটনাটির সঙ্গে স্থানীয় এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার কোন সম্পৃক্ততার কথা জানাতে পারেনি স্থানীয়দের কেউ কিংবা ঘটনার দিনের প্রত্যক্ষদর্শীরা।

ঘটনা সূত্রে জানাগেছে, সোনারগাঁও জি.আর ইনস্টিটিউশন স্কুল এন্ড কলেজের অভিভাবকদের মাঝে করোনাকালে শিক্ষার্থীদের বেতন নিয়ে অসন্তোষ সৃষ্টি হয়। ওই বিষয়ে অভিভাবকদের সঙ্গে বৈঠক করতে যান এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা।

১৭ নভেম্বর মঙ্গলবার দুপুরে তিনি বিদ্যালয়ে প্রবেশ করেন। প্রধান ফটক দিয়ে প্রবেশের সময় তিনি গেইটের নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন।

ওই সময় প্রধান ফটকের সামনে আনোয়ার হোসেনের নামে লাগানো নামফলকটি নিয়ে উপস্থিতিদের মধ্যে একজন এমপি খোকার দৃষ্টি আকর্ষণ করে প্রশ্ন রাখেন, এটা কি জেলা পরিষদের বরাদ্ধে কাজ হচ্ছে? তখন এমপি উত্তর দেন, এটার জন্য আমি ডিও লেটার দিয়েছিলাম।’ ওই ব্যক্তি তখন পাল্টা প্রশ্ন করে এমপিকে বলেন, তাহলে এখানে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের নাম কেন? তখন এমপি বলেন, থাক, সমস্যা নাই। উন্নয়ন হলেই হলো।’ কয়েক সেকেন্টের এমন কথাপোকথন হতে হতে এমপি ততক্ষণে কলেজের ভেতরে প্রবেশ করে ফেলেন।

এরপর এমপি খোকা গভর্নিং বডির বেশকজন সদস্য ও শিক্ষকদের নিয়ে অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ছাড়াও বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ সুলতান মিয়া, কাউন্সিলর জায়েদা আক্তার মনি, কাউন্সিলর দুলাল মিয়া, গভর্নিং বডির সভাপতি সদস্য মোহাম্মদ আলী, পৌর জাতীয়পাটির সভাপতি এমএ জামান ও শিক্ষানুরাগী আলেয়া আক্তার প্রমূখ।

অভিভাবকদের এমপি বলেন, আমি জানি এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বেতন নিয়ে অভিভাবকদের সংশ্লিষ্টদের মধ্যে অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছে। আমি চাই এ অসন্তোষ দূর করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় থাকুক। সরকার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বেতন পরিশোধ করেছেন। তারপরেও যদি কোন বেতনে অর্থের প্রয়োজন সেটা আমি দেখবো। বৈঠক শেষে এমপি সকলকে নিয়ে বিদ্যালয় ত্যাগ করেন।

অন্যদিকে ওই বৈঠকে শেষে কে বা কারা কলেজের গেইটে লাগানো আনোয়ার হোসেনের নামফলকটি ভেঙ্গে ফেলে। স্থানীয়দের অনেকেই জানিয়েছেন এই নামফলকটি বেশকজন পৌর ছাত্রলীগের নেতাকর্মী ভেঙ্গেছে। এর কারন হিসেবে জানাগেছে, জেলা পরিষদের বরাদ্ধের এই কাজটির ঠিকাদারী চেয়েছিল পৌর ছাত্রলীগের বেশকজন নেতা। কিন্তু কাজটি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের পছন্দের একজন ঠিকাদারকে পাইয়ে দেয়া হয়। যে কারনে ছাত্রলীগের ওইসব নেতাদের মাঝে ক্ষোভ ছিল। আর ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ হিসেবে এই নামফলকটি ভেঙ্গে ফেলা হয়। কিন্তু এই ঘটনার সঙ্গে স্থানীয় এমপি খোকার কোন সম্পৃক্ততা নাই। তাছাড়াও আসন্ন সোনারগাঁও পৌরসভার নির্বাচন নিয়ে একটি প্রভাবশালী ও বিত্তশালী মহল উঠে পড়ে লেগেছে এমপি খোকার বিরুদ্ধে। ঐ চক্রের পৃষ্ঠপোষকরা টাকার জোরে নিজেদের অস্তিত্ব ও প্রভাব প্রতিপত্তি বহাল রাখার জন‍্য ইতিমধ্যে বহু অপতৎপরতা চালাচ্ছে।

এছাড়াও ঠিকাদারী কাজের বিরোধ নিয়ে নামফলকটি ভাঙ্গা হতেপারে বলে জানান সোনারগাঁওয়ের ভিজ্ঞজনরা। এমপি খোকা দাঁড়িয়ে থেকে ভেঙ্গেছেন কিংবা কাউকে নামফলক ভাঙ্গতে নির্দেশ দিয়েছেন এমনটা জানাননি ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিতির কেউই। আবার অনেকেই জানিয়েছেন, অধ্যক্ষ সুলতান মিয়ার যে রহস্যজনক বক্তব্য মিডিয়াতে এসেছে সেটার কারন হলো অভিভাবকদের পক্ষেই বক্তব্য রেখেছিলেন এমপি খোকা।

সংবাদটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো সংবাদ পড়ুন ..
© All rights reserved © 2020 BD NEWS WORLD
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com